মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
বাংলাদেশ বনশিল্প উন্নয়ন কর্পোরেশন

লাম্বার প্রসেসিং কমপেস্নক্র্ ও করাতকল প্রকল্প(এল.পি.সি), কাপ্তাই,রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা বশিউক এর একটি বৃহৎ শিল্প ইউনিট। এই ইউনিটটি পার্বত্য চট্রগ্রামের গভীর সংরক্ষিত বনাঞ্চল থেকে বশিউক কর্তৃক,আহরিতব্য বনবিভাগের কাঠের উপর নির্ভরশীল একটি  প্রকল্প । কর্ণফুলী কাঠ আহরণ ইউনিটের (৩১/০৩/২০০৫ ইং তারিখে পে-অফকৃত) মাধ্যমে যান্ত্রিক ও হাতী দ্বারা আহরিত পরিপক্ক ও উন্নতমানের গোলকাঠের নির্ভরতার ভিত্তিতে ১৯৬৬-৬৭ ইং সালে এই প্রতিষ্ঠানটি সৃষ্টি করা হয়েছিল। প্রতি বছর পরিবেশ ও বন মন্ত্রনালয়/বনবিভাগ কর্তৃক  কর্ণফুলী কাঠ আহরণ ইউনিটের অনুকুলে কুপ বরাদ্দ হত এবং সেই কাঠ যান্ত্রিক ও হাতী দ্বারা আহরণ করিয়া (সংগ্রহ ও বিক্রয়  প্রতিষ্ঠান) কাপ্তাই এর মাধ্যমে বশিউকের মাধ্যমে এর শিল্প  ইউনিট সমুহে সরবরাহ করা হত। অন্যান্য শিল্প ইউনিটের ন্যায় এই শিল্প ইউনিটটিও পিএসও,কাপ্তাই এর নিকট থেকে বাৎসরিক ৪/৫ লক্ষ ঘনফুট কাঠ সরবরাহ নিত। এই পরিপক্ক ও উন্নতমানের গোলকাঠগুলো চিড়াই ও প্রক্রিয়াজাতকরণের মাধ্যমে বাংলাদেশ রেলওয়ে,বাংলাদেশ পলস্নী বিদ্যুতায়ন বোর্ড, বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড ,বাংলাদেশ নৌ বাহিনী,সড়ক ও জনপথ বিভাগ,বিসিআইসি,বিএসইসি খাদ্য অধিদপ্তর ও বশিউকের অন্যান্য শিল্প ইউনিটসহ প্রাইভেট পার্টির নিকট বৈদ্যুতিক খুঁটি এ্যাংকর লগ,স্টাবিলাইজার লগ,ক্রস-আর্মস,রেলওয়ে সস্নীপার,কেবল ড্রাম,চিড়াই কাঠ ইত্যাদি প্রক্রিয়াজাতকরণ/সিজনিং ট্রিটমেন্ট সহ সরবরাহ করে আসত।

বনবিভাগ/পববেশ ও বন মন্ত্রণালয় কর্তৃক বশিউককে কুপ বরাদ্দ না দেওয়া এবং কর্ণফুলী কাঠ আহরণ ইউনিট, কাপ্তাই পে-অফ হওয়ার প্রেক্ষিতে বশিউকের এই বৃহৎ শিল্প ইউনিটটি কাঁচামাল তথা কাঠের অভাবে দারম্নন সংকটে পড়ে এবং বর্তমানেও এই সংকট অব্যাহত আছে । যে কারনে প্রচুর কার্য্যাদেশ থাকা সত্তেবও কাঠের অভাবে উৎপাদনের লক্ষমাত্রা অর্জন করা সম্ভব হচ্ছেনা । কাঠ  প্রাপ্তির বিষয়ে কেন্দ্রীয়ভাবে বিকল্প ব্যবস্থা গ্রহন আবশ্যক।কাঁচামাল/কাঠের এই সংকট থেকে উত্তোরনের নিমিত্তে বর্তমান আর্থিক সালে রাবার বিভাগ,চট্রগ্রাম জোনের নিয়ন্ত্রনাধীন দাঁতমারা ও ডাবুয়া জীবনচক্র হারানো রাবার গাছ কর্তন,আহরণ ও পরিবহন পুর্বক এই প্রকল্পটিতে চিড়াই করিয়া ডিফিউশান ট্রিটমেন্টের মাধ্যমে বশিউকের শিল্প ইউনিট সমুহে সরবরাহের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে ।

রাবার কাঠ প্রক্রিয়াজাতকরণের পাশাপাশি প্রাইভেট উৎস থেকে গর্জন/অন্যান্য প্রজাতির গোল/চিড়াই কাঠ সংগ্রহের পরিকল্পনা হাতে রয়েছে । আশা করা যায়,পরিকল্পনা মাফিক রাবার ট্রিটমেন্টকৃত চিড়াই কাঠ আমত্ম: প্রকল্প সমুহে সরবরাহ সহ খাদ্য অধিদপ্তরের জন্য ডানেজ সরবরাহ এবং বাংলাদেশ নৌ বাহিনীর জন্য চিড়াইকাঠ সরবরাহ করা সম্ভব হলে ২০১১-২০১২ অর্থ বছরে ৫০.০০(পঞ্চাশ লক্ষ) টাকার  উর্দ্ধে নীট লাভ করা সম্ভব হবে।

  • কী সেবা কীভাবে পাবেন
  • প্রদেয় সেবাসমুহের তালিকা
  • সিটিজেন চার্টার
  • সাধারণ তথ্য
  • সাংগঠনিক কাঠামো
  • কর্মকর্তাবৃন্দ
  • তথ্য প্রদানকারী কর্মকর্তা
  • কর্মচারীবৃন্দ
  • বিজ্ঞপ্তি
  • ডাউনলোড
  • আইন ও সার্কুলার
  • ফটোগ্যালারি
  • প্রকল্পসমূহ
  • যোগাযোগ

ক.     কাঁচামাল/কাঠ:এলপিসি ইউনিটের প্রধান সমস্য কাঠ/কুপের অভাব। কাঠের অভাবে ইউনিটটি ক্রমাগত    লোকসান দিচ্ছে। সরম্নরী ভিত্তিতে পার্বত্য চট্রগ্রাম(উত্তর) বন বিভাগের মাচালং রেঞ্জের প্রসত্মাবিত কুপ মাকিং করা ১.৫০লক্ষ ঘনফুট গোলগাছ প্রাপ্তি ও আহরণের ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন। তাছাড়া আমত্মর্জাতিক টেন্ডারের মাধ্যমে কেন্দ্রীয়ভাবে গর্জন ও অন্যান্য প্রজাতীর কাঠ আমদানী করা জরম্নরী ।      

 

খ.     জনবল সমস্যা: এলপিসিতে বর্তমানে জনবলে সর্বনিম্নে পৌঁছেছে । দক্ষ ও মুল অপারেটরগণ মারা গিয়াছে   এবংঅবসর গ্রহণ করেছে্ বর্তমানে কেবলমাত্র বয়ো:বৃদ্ধ ও অদক্ষ লোক রয়েছে্ যা দ্বারা ইউনিটটি পুণাদ্দ্যামেচালানোপ্রায় অসম্ভব হয়ে পড়েছে । কাপ্তাই,বাঘাইহাট কেন্দ্রে টেক্র্ ও পিএসও এর লিকুইডেসন সেলের কোটি কোটি টাকার সহায় সম্পদ অব্যবহৃত অবস্থায় রয়েছে,তা রক্ষণাবেক্ষণ এর জন্য এলপিসি ইউনিটে জরম্নরী  ভিত্তিতে কমপক্ষে ২-৩জন মাঠ পর্যায়ের স্টাফ ও ১ জন সহ-ব্যবস্থাপক(প্রশাসন) বদলী/নিয়োগ দেওয়া  প্রয়োজন।

 

গ.     টেক্র্ এর যন্ত্রপাতি :-টেক্র্ এর কোটি কোটি টাকার ব্যবহার অনুপযোগী অপ্রয়োজনীয় যন্ত্রযান/যন্ত্রাংশ দিন দিন        অব্যবহৃত থাকায় তা নষ্ট হয়ে যাচ্ছে ।জরম্নরী ভিত্তিতে তা বিক্রয়ের ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন। ১২জন শ্রমিক/কর্মচারী ও ২০ জন আনসারের বেতন ভাতাদি বাবদ প্রতিমাসে বর্ণিত যন্ত্রায়শ ও যন্ত্রযান ইত্যাদি পাহারার কাজে প্রায় ২.৫০ লক্ষ টাকা ব্যায় হইতেছে।

 

ঘ.     বাসাবাড়ী রক্ষণাবেক্ষণ/মেরামত: বশিউক,টেক্র্ ও পিএসও এর লিকুইডেসন সেলের অমর্ত্মগত বিভিন্ন বাসাুভবন     যথা-যথভাবে রক্ষণাবেক্ষণ করা প্রয়োজন। উক্ত বাসা/ভবনগুলি রক্ষণাবেক্ষণ/মেরামতের অভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে  এ ব্যাপারে বাসা/ভবনগুলি জরম্নরীভাবে মেরামত/রক্ষণাবেক্ষণের প্রয়োজন,এর জন্য বাজেট বরাদ্দ রেখে মেরামত  করা প্রয়োজন।মেরামত করে ব্যবহার উপযোগী করে ভাড়া দেয়া হলে বাসাগুলো তুলনা মুলক ভাল থাকবে।

 

ঙ.   হাতী বিক্রয়/হসত্মামত্মর: বর্তমানে ১ টি বাচ্চাসহ ৪ টি হাতী রয়েছে।হাতি রয়েছে। হাতিগুলি গভীর বনাঞ্চলে বিচরণ

করে থাকে। তাই হাতিগুলির প্রতি সার্বক্ষণিক নিয়ন্ত্রন রাখা সম্ভব হচ্ছেনা বিধায় যে কোন দুর্ঘটনা ঘটতে পারে এবং ভৌগলিক  সীমারেখা পার হয়ে অন্যত্র চলে যাওয়ার সম্ভাবনাও রয়েছে্ এছাড়াও হাতিগুলি যে সকল এলাকায় বিচরণ করছে সে সকল এলাকায় ঝুমের ফসল ও বাড়ীঘর নষ্ট হচ্ছে। বিজয় রানীকে অদ্যবধি প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা প্রহণ না করাতে দিন দিন বন্য স্বাভাব ধারণ করছে। এ হাতিটি যে কোন সময় অন্য হাতির সহিত অনত্র চলে যেতে পারে ।হাতিগুলি জরম্নরী ভিত্তিতে বন অধিদপ্তরে হসত্মামত্মর করা/বিক্রয়ের ব্যবস্থা করা প্রয়োজন। জেলা প্রশাসক,রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলার নিকট হইতে হাতিগুলির পজেশন সার্টিফিকেট সংগ্রহের জন্য ইতিমধ্যে যোগাযোগ করা হইয়াছে ।

 

চ.   আর্থিক সংকট: এলপিসি ইউনিট বর্তমানে আর্থিক সংকটের মধ্যে রয়েছে যার ফলে রাবার বিভাগ চট্রগ্রাম জোনের রাবার গাছের বিলের টাকা সিংহভাগই অপরিশোধিত রয়েছে । মুলধনের প্রবাহ বৃদ্ধি করা হলে কার্য্যাদেশ সংগ্রহ পুর্বক ইউনিটকে লাভ জনক করা সম্ভব হবে এবং রাবার কাঠের মুল্যও পরিশোধ করা যাবে।

 

ছ.   লিকুইডেশন সেলের কাজ: এল.পি.সি. একটি বৃহৎ শিল্প ইউনিট । এর বর্তমান অবস্থার উন্নতি ও স্বাভাবিক কাজ কর্ম ছাড়াও পে-অফকৃত টেক্র্  পিএসও,কেআইই এর লিকুইডেশন সেল সংক্রামত্ম সকল কার্যাবলী ইউনিট প্রধান ও হিসাব প্রধানকে সম্পন্ন করতে হচ্ছে। এটি একটি বাড়তি চাপ। জরম্নরী ভিত্তিতে লিকুইডেশন সেলের কার্যাবলী চালানোর জন্য অমত্মতপক্ষে ১ জন  সহ-ব্যবস্থাপক(হিসাব)/হিসাব কর্মকর্তা অত্র ইউনিটে পোষ্টিং দেয়া প্রয়োজন ।সরকারী সম্পদ রক্ষার জন্য ইহা অত্যাবশ্যক ।

লাম্বার প্রসেসিং কমপেস্নক্র্ ও করাতকল প্রকল্প(এল.পি.সি), কাপ্তাই,রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা বশিউক এর একটি বৃহৎ শিল্প ইউনিট। এই ইউনিটটি পার্বত্য চট্রগ্রামের গভীর সংরক্ষিত বনাঞ্চল থেকে বশিউক কর্তৃক,আহরিতব্য বনবিভাগের কাঠের উপর নির্ভরশীল একটি  প্রকল্প । কর্ণফুলী কাঠ আহরণ ইউনিটের (৩১/০৩/২০০৫ ইং তারিখে পে-অফকৃত) মাধ্যমে যান্ত্রিক ও হাতী দ্বারা আহরিত পরিপক্ক ও উন্নতমানের গোলকাঠের নির্ভরতার ভিত্তিতে ১৯৬৬-৬৭ ইং সালে এই প্রতিষ্ঠানটি সৃষ্টি করা হয়েছিল। প্রতি বছর পরিবেশ ও বন মন্ত্রনালয়/বনবিভাগ কর্তৃক  কর্ণফুলী কাঠ আহরণ ইউনিটের অনুকুলে কুপ বরাদ্দ হত এবং সেই কাঠ যান্ত্রিক ও হাতী দ্বারা আহরণ করিয়া (সংগ্রহ ও বিক্রয়  প্রতিষ্ঠান) কাপ্তাই এর মাধ্যমে বশিউকের মাধ্যমে এর শিল্প  ইউনিট সমুহে সরবরাহ করা হত। অন্যান্য শিল্প ইউনিটের ন্যায় এই শিল্প ইউনিটটিও পিএসও,কাপ্তাই এর নিকট থেকে বাৎসরিক ৪/৫ লক্ষ ঘনফুট কাঠ সরবরাহ নিত। এই পরিপক্ক ও উন্নতমানের গোলকাঠগুলো চিড়াই ও প্রক্রিয়াজাতকরণের মাধ্যমে বাংলাদেশ রেলওয়ে,বাংলাদেশ পলস্নী বিদ্যুতায়ন বোর্ড, বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড ,বাংলাদেশ নৌ বাহিনী,সড়ক ও জনপথ বিভাগ,বিসিআইসি,বিএসইসি খাদ্য অধিদপ্তর ও বশিউকের অন্যান্য শিল্প ইউনিটসহ প্রাইভেট পার্টির নিকট বৈদ্যুতিক খুঁটি এ্যাংকর লগ,স্টাবিলাইজার লগ,ক্রস-আর্মস,রেলওয়ে সস্নীপার,কেবল ড্রাম,চিড়াই কাঠ ইত্যাদি প্রক্রিয়াজাতকরণ/সিজনিং ট্রিটমেন্ট সহ সরবরাহ করে আসত।

বনবিভাগ/পববেশ ও বন মন্ত্রণালয় কর্তৃক বশিউককে কুপ বরাদ্দ না দেওয়া এবং কর্ণফুলী কাঠ আহরণ ইউনিট, কাপ্তাই পে-অফ হওয়ার প্রেক্ষিতে বশিউকের এই বৃহৎ শিল্প ইউনিটটি কাঁচামাল তথা কাঠের অভাবে দারম্নন সংকটে পড়ে এবং বর্তমানেও এই সংকট অব্যাহত আছে । যে কারনে প্রচুর কার্য্যাদেশ থাকা সত্তেবও কাঠের অভাবে উৎপাদনের লক্ষমাত্রা অর্জন করা সম্ভব হচ্ছেনা । কাঠ  প্রাপ্তির বিষয়ে কেন্দ্রীয়ভাবে বিকল্প ব্যবস্থা গ্রহন আবশ্যক।কাঁচামাল/কাঠের এই সংকট থেকে উত্তোরনের নিমিত্তে বর্তমান আর্থিক সালে রাবার বিভাগ,চট্রগ্রাম জোনের নিয়ন্ত্রনাধীন দাঁতমারা ও ডাবুয়া জীবনচক্র হারানো রাবার গাছ কর্তন,আহরণ ও পরিবহন পুর্বক এই প্রকল্পটিতে চিড়াই করিয়া ডিফিউশান ট্রিটমেন্টের মাধ্যমে বশিউকের শিল্প ইউনিট সমুহে সরবরাহের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে ।

রাবার কাঠ প্রক্রিয়াজাতকরণের পাশাপাশি প্রাইভেট উৎস থেকে গর্জন/অন্যান্য প্রজাতির গোল/চিড়াই কাঠ সংগ্রহের পরিকল্পনা হাতে রয়েছে । আশা করা যায়,পরিকল্পনা মাফিক রাবার ট্রিটমেন্টকৃত চিড়াই কাঠ আমত্ম: প্রকল্প সমুহে সরবরাহ সহ খাদ্য অধিদপ্তরের জন্য ডানেজ সরবরাহ এবং বাংলাদেশ নৌ বাহিনীর জন্য চিড়াইকাঠ সরবরাহ করা সম্ভব হলে ২০১১-২০১২ অর্থ বছরে ৫০.০০(পঞ্চাশ লক্ষ) টাকার  উর্দ্ধে নীট লাভ করা সম্ভব হবে।

ছবি নাম মোবাইল
ইঞ্জিনিয়ার মোস্তাক আহমেদ ০১৭১২৬২৮৬৪২

ছবি নাম মোবাইল
ইঞ্জিনিয়ার মোস্তাক আহমেদ ০১৭১২৬২৮৬৪২

ছবি নাম মোবাইল

ক.     কাঁচামাল/কাঠ:এলপিসি ইউনিটের প্রধান সমস্য কাঠ/কুপের অভাব। কাঠের অভাবে ইউনিটটি ক্রমাগত    লোকসান দিচ্ছে। সরম্নরী ভিত্তিতে পার্বত্য চট্রগ্রাম(উত্তর) বন বিভাগের মাচালং রেঞ্জের প্রসত্মাবিত কুপ মাকিং করা ১.৫০লক্ষ ঘনফুট গোলগাছ প্রাপ্তি ও আহরণের ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন। তাছাড়া আমত্মর্জাতিক টেন্ডারের মাধ্যমে কেন্দ্রীয়ভাবে গর্জন ও অন্যান্য প্রজাতীর কাঠ আমদানী করা জরম্নরী ।      

 

খ.     জনবল সমস্যা: এলপিসিতে বর্তমানে জনবলে সর্বনিম্নে পৌঁছেছে । দক্ষ ও মুল অপারেটরগণ মারা গিয়াছে   এবংঅবসর গ্রহণ করেছে্ বর্তমানে কেবলমাত্র বয়ো:বৃদ্ধ ও অদক্ষ লোক রয়েছে্ যা দ্বারা ইউনিটটি পুণাদ্দ্যামেচালানোপ্রায় অসম্ভব হয়ে পড়েছে । কাপ্তাই,বাঘাইহাট কেন্দ্রে টেক্র্ ও পিএসও এর লিকুইডেসন সেলের কোটি কোটি টাকার সহায় সম্পদ অব্যবহৃত অবস্থায় রয়েছে,তা রক্ষণাবেক্ষণ এর জন্য এলপিসি ইউনিটে জরম্নরী  ভিত্তিতে কমপক্ষে ২-৩জন মাঠ পর্যায়ের স্টাফ ও ১ জন সহ-ব্যবস্থাপক(প্রশাসন) বদলী/নিয়োগ দেওয়া  প্রয়োজন।

 

গ.     টেক্র্ এর যন্ত্রপাতি :-টেক্র্ এর কোটি কোটি টাকার ব্যবহার অনুপযোগী অপ্রয়োজনীয় যন্ত্রযান/যন্ত্রাংশ দিন দিন        অব্যবহৃত থাকায় তা নষ্ট হয়ে যাচ্ছে ।জরম্নরী ভিত্তিতে তা বিক্রয়ের ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন। ১২জন শ্রমিক/কর্মচারী ও ২০ জন আনসারের বেতন ভাতাদি বাবদ প্রতিমাসে বর্ণিত যন্ত্রায়শ ও যন্ত্রযান ইত্যাদি পাহারার কাজে প্রায় ২.৫০ লক্ষ টাকা ব্যায় হইতেছে।

 

ঘ.     বাসাবাড়ী রক্ষণাবেক্ষণ/মেরামত: বশিউক,টেক্র্ ও পিএসও এর লিকুইডেসন সেলের অমর্ত্মগত বিভিন্ন বাসাুভবন     যথা-যথভাবে রক্ষণাবেক্ষণ করা প্রয়োজন। উক্ত বাসা/ভবনগুলি রক্ষণাবেক্ষণ/মেরামতের অভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে  এ ব্যাপারে বাসা/ভবনগুলি জরম্নরীভাবে মেরামত/রক্ষণাবেক্ষণের প্রয়োজন,এর জন্য বাজেট বরাদ্দ রেখে মেরামত  করা প্রয়োজন।মেরামত করে ব্যবহার উপযোগী করে ভাড়া দেয়া হলে বাসাগুলো তুলনা মুলক ভাল থাকবে।

ইঞ্জিনিয়ার মো: মোস্তাক আহমেদ

ইউনিট প্রধান,

বশিউক,এলপিসি,কাপ্তাই                                                    

টেলিফোন নং-০৩৫২৯-৫৬২৭১

মোবাইল:০১৭১২৬২৮৬৪২